fbpx

বিট্টুর বুদ্ধি

বিট্টুর বুদ্ধি - পবিত্র রপ্তান

প্রিয়াংশুর বয়স প্রায় দুবছর হবে| কথা সবই বলতে পারে শুধু উচ্চারণটা সঠিক হয় না|সব সময় অস্থির | দিনে কম করে হলে দু-চার জন তার ছোট হাতের আঘাতের শিকার হয়| প্রধান হাতিয়ার হল তার খুন্তি| যেন কলি যূগের খুন্তি অবতার| সবাইকে খুন্তি দিয়েই সে একাই শান্ত করবে| দুষ্টু দমন হবে খুন্তির দ্বারা|
       গাঁয়ের রং ফর্সা,চুল গুলো লালচে,চোখের মনি দুটো গাঢ় কালো দেখলে মনে হয় না খুব চালাক বুদ্ধিমান|কখনও কোদাল নিয়ে মাটি কোপানো কখনও বা মাটি মাথায় করে বওয়া|এই হল তার কাজ|কাজ করলেই যেন সে ভালো থাকে|
   চৈত্র মাসের মাঝামাঝি সময় একদিন সকালে প্রিয়াংশু তার দিদিকে নিয়ে আমাদের আম গাছের  তলা থেকে আম কুড়িয়ে নিয়ে গেছে|আম তখনও খুব বড়ো হয়নি|এখন তার কাজ আম গাছ তলায় বসে থাকা আর আম খাওয়া|আমে যে তার কী পেয়েছে সেই জানে|
    প্রিয়াংশুকে সবাই বিট্টু বলে ডাকে|সে দিন দুপুর বেলা ওকে নিয়ে ওর মা বাবা ঘুমার ছিল|বিট্টু ঘুম পড়েনি ঘুমানোর ভ্যান করছিল|যেই ওর মা বাবা ঘুমিয়ে পড়েছে আস্তে আস্তে বিছানা ছেড়ে উঠে সোজা আম গাছ তলায়|গাছের তলায় একটা চেয়ার রখল তারপর একটা লাঠি নিয়ে চেয়ারের ওপর দাঁড়ালো|দুমাদুম লাঠি দিয়ে গাছের ডালে আঘাত করল| বারো তেরোটা আম মাটিতে গড়াগড়ি খেতে লাগলো|গাছটার ওপর দিয়ে যে কত বড়ো ঝড় বয়ে গেল তা সে স্বয়ং গাছই বুঝতে পারেনি|আম গুলো কুড়িয়ে নিয়ে কোন শব্দ না করে বালিশের তালায় রেখে দিল|কাজটা এত তাড়াতাড়ি হল যে কেউ কিছুই জানতেই পারল না|বিকেল বেলায় হঠাৎ ঘুম থেকে ওঠে আগে বালিশের তোলা দেখতে লাগল আম গুলো ঠিক আছে কীনা|যেই বালিশ উল্টালো আম গুলো দেখা গেল|পাশেই বসে ছিল বিট্টুর মা চোখে আবার পড়বেনা|মার দিকে চোখ পড়তেই আম গুলোর ওপর বসে পরে|ঘুমে জড়ানো চোখ এদিক ওদিক ফালুক ফুলুক করে দেখতে লাগল |এত নিরীহ প্রাণী বোধ হয় আগে দেখা যায়নি|তার মা দেখে তো অবাক|সবাইকে ডেকে ডেকে দেখাল তার ছেলে কী কান্ড করেছে|আপাতত সেই দিনের মতো ব্যাপারটা মিটে গেল|
     পরের দিন বিট্টু সকালে ঘুমিয়ে ছিল| যখন ঘুম ভাঙ্গল মাথায় হাত দিতেই শিবের মতো প্রলয় নৃত্য আরম্ভ করে দিল|প্রায় ঘন্টা খানেক চলল এই নৃত্য সঙ্গে কান্না|দোকান থেকে লজেন্স এনে শান্ত করা গেল|আসলে সে যখন ঘুমারছিল তার মা তার মাথা নেড়া করছিল|অর্ধেক নেড়া হয়ে গেছে তখন বিট্টুর ঘুম ভেঙ্গে গেছে|
এখনই তার চুল লাগিয়ে দিতে হবে|তা না হলে নৃত্য থামবে না| চুল তাকে লাগিয়ে দিতেই হবে|বিট্টুর যা বুদ্ধি যে চুল গেছে তা কি আর ফিরে পাওয়া যাবে?