Posted on Leave a comment

মৌর্য সাম্রাজ্যের প্রজা-কল্যাণকর তথা সামাজিক কার্যাবলী

মৌর্য সাম্রাজ্যের প্রজা-কল্যাণকর তথা সামাজিক কার্যাবলী - সুজয় বাগ

কৌটিল্যের অর্থশাস্ত্র এবং অশোকের অভিলেখগুলি মৌর্য কালের লিখিত রেকর্ডের প্রধান উৎস।এগুলি থেকে চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য ও অশোকের নানা জনহিতকর তথা সামাজিক কার্যাবলীর অনুসন্ধান পাওয়া যায়। কৌটিল্যের রাষ্ট্র নাগরিকদের অধিকার ও সুযোগ সুবিধা দিত এবং তাদের সুরক্ষার ব্যবস্থা করত।রাষ্ট্রের লক্ষ্যই ছিল সামাজিক যূথবদ্ধ মানুষের নিরাপত্তার বিকাশ ও মঙ্গলসাধন।
সমকালীন আর্থসামাজিক ,রাজনৈতিক ব্যবস্থার প্রেক্ষাপটে কৌটিল্য-কৃত জনকল্যাণ রাষ্ট্রের কাঠামোর মধ্যেই নাগরিকদের পৌর সামাজিক,অর্থনৈতিক এবং আইনগত ও পৌর স্বাধীনতার অধিকার প্রদত্ত হয়েছিল।

জনগণের স্বার্থে নানা প্রশাসনিক তৎপরতার উল্লেখও পাওয়া যায় অর্থশাস্ত্রে। কোন বালক,বৃদ্ধ,পীড়িত ও বিপদ্‌গ্রস্থ লোক যদি রক্ষকশূণ্য হয়।তবে রাজা তাদের ভরণপোষণের ব্যবস্থা করতেন।শুধু তাই নয়,বন্ধ্যা স্ত্রী

কোনও অপত্যবতীর সন্তানেরা যদি প্রভুহীন,স্বামীহীন ও পিতৃহীন হয়,রাজা তাদেরও ভরণপোষণের দায়িত্ব নিতেন। মৌর্য যুগের অপর একটি উল্লেখযোগ্য জনহিতকর কাজ হল সুদর্শন হ্রদ নির্মাণ।সেতুবন্ধনের মাধ্যমে পর্বত থেকে প্রবাহিত জলরাশি দেশ ও সাধারণ প্রজাবর্গের স্বার্থে ব্যবহারের প্রয়োজন অনুভূত হয়েছিল বলেই চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য ঐ গিরিখাতের উন্মুক্ত দিকটিকে সেতুর দ্বারা বন্ধন করে এক বিশাল জলাধার তৈরি

2 করেছিলেন।
চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের পরবর্তী সময়ে মানবকল্যাণকামী প্রজাবৎসল অশোক অহিংসা,মৈত্রী ও প্রীতির বন্ধনে সকল জনসাধারণকে আপ্লুত করেছিলেন।অশোক পশু ও মনুষ্যের উপযোগী দুই প্রকার
চিকিৎসা ব্যবস্থার প্রচলনের পাশাপাশি এই দুই প্রকার চিকিৎসার প্রচেষ্টার জন্য উপযুক্ত চিকিৎসালয় ,ঔষধাগার এবং বিভিন্ন প্রকার ভেষজ তথা অন্যান্য ঔষধ প্রস্তুতের জন্য এবং তার অভাবে অন্যান্য দেশ থেকে সেগুলির আমদানির জন্য যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছিলেন।কলিঙ্গ যুদ্ধের পরবর্তী সময়ে অশোক হিংসা বা যুদ্ধের পরিবর্তে অহিংসা,মৈত্রী,প্রেম,প্রীতি ও করুণার প্রভাবে সকলকে প্রভাবিত করেছিলেন অর্থাৎ ধর্মবিজয়নীতির প্রচার করেন।বৌদ্ধ ধর্মের একনিষ্ঠ অনুগামী সম্রাট অশোক যে ধর্মনীতির প্রচার করেছিলেন,সেটি সম্পূর্ণভাবে মানবকল্যাণ ধর্ম রূপেই উপলব্ধ হয়। মৌর্য যুগে বিশেষত চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য ও অশোকের সময়ে সাধারণ জনগণের নানা সুযোগ সুবিধার দিকে সম্রাটগণ বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ করতেন।

আকর নির্দেশ

1. Sircar,Dines Chandra.Select Inscriptions bearing on Indian history and civilization.Vol- i.Calcutta:University of Calcutta.1942
2. কৌটিলীয়ম্‌ অর্থশাস্ত্রম্‌-বন্দ্যোপাধ্যায়,মানবেন্দু সম্পাদিত,প্রথম খণ্ড। কলকাতা: সংস্কৃত পুস্তক ভাণ্ডার, 2014
3. Arthashastra of Kautilya,Ed. R. Shamasastry .Mysore 1909;Tr.by R.Shamasastry,3 rd ed.Mysore 1929.

4. সরকার,দেবার্চনা।নিত্যকালের তুই পুরাতন।কলকাতাঃপশ্চিমবঙ্গ রাজ্য পুস্তক পরিষদ,2013
5. Dhammika,S.Edicts of Ashoka,13 th Rock edict.(অনুবাদগ্রন্থ )
6. The Kautilya Arthashastra.Ed.R.P. Kangle,vol-2.Bombay:Bombay University.1972
7. Barua,Beni Madhab.Asoka and his Inscriptions.calcutta:New age publishers Ltd.1946

Leave a Reply